,
output_6836qW

থামেনি চোরা শিকার

সিলেট সুরমা ডেস্ক::::: বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনে বাঘ-মানুষের দ্বন্দ্ব কমিয়ে আনার কথা বন অধিদপ্তর দাবি করলেও থেমে নেই চোরা শিকারিদের দৌরাত্ম।
বন বিভাগ ও ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্টের ২০০৯ সালের জরিপে বাংলাদেশে চারশ থেকে সাড়ে চারশ রয়েল বেঙ্গল টাইগার থাকার কথা বলা হলেও এ বছর বন বিভাগ ও ওয়াইল্ডলাইফ ইন্সটিটিউট অব ইন্ডিয়ার ক্যামেরা পদ্ধতির জরিপে বাঘের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৬টিতে।
২০০১ সাল থেকে চলতি বছরের ২৮ জুলাই পর্যন্ত সময়ে চোরা শিকারীদের হাতে অন্তত আটটি বাঘের মৃত্যু হয়েছে বলে সুন্দরবন বিভাগের বনসংরক্ষক (সিএফ) জহির উদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন।
বাংলাদেশের সুন্দরবন থেকে বাঘ হত্যা করে এর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিদেশে পাচারের সঙ্গে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সদস্য এবং প্রভাবশালীরাও জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।
বন কর্মকর্তাদের তথ্য অনুযাযী, গত পনের বছরে সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে ৩২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে; অন্যদিকে মানুষের হাতে মারা পড়েছে অন্তত ৩০টি বাঘ। বন অধিদপ্তর বলছে, গেল তিন বছরে লোকালয়ে আসা কোনো বাঘ মারা যায়নি
বন অধিদপ্তরের প্রধান বনসংরক্ষক মো. ইউনুছ আলী  বলেন, “বাঘ-মানুষের দ্বন্দ্ব কমাতে পারা আমাদের একটা বড় সফলতা। কিন্তু সুন্দরবনে বিশাল আন্তর্জতাকি বর্ডার যেমন রয়েছে, তাতে বাঘ শিকারের বিভিন্ন সুযোগ রয়েছে। চোরা শিকার, হরিণ পাচার- এটা বাঘের বড় থ্রেট”।
প্রকৃতি সংরক্ষণ সমিতির নির্বাহী পরিচালক ও সাবেক উপ-প্রধান বন সংরক্ষক তপন কুমার দে  বলেন, “সাম্প্রতিককালে বন বিভাগ ও বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার সম্মিলিত কর্মতৎপরতায় বাঘ-মানুষ দ্বন্দ্বে জীবনহানি কমেছে। বিশেষ করে ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে লোকালয়ে চলে আসা কোনো বাঘ মারা যায়নি। বাঘের আক্রমণে মানুষ মারা যাওয়ার সংখ্যাও উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে।”

তবে চোরা শিকারির উৎপাত বেড়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, র‌্যাব ও পুলিশের হাতে চারটি বাঘের চামড়া ধরা পড়েছে এই সময়ে।

বন সুরক্ষায় ‘স্মার্ট পেট্রলিং’সহ কিছু উদ্যোগ থাকলেও নিজেদের সমস্যার কথা তুলে ধরেন প্রধান বন সংরক্ষক।

খুলনার কয়রায় বাঘের চামড়া বেচা-কেনার সময় দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

খুলনার কয়রায় বাঘের চামড়া বেচা-কেনার সময় দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।
তিনি বলেন, “পুরো সুন্দরবনের জন্য মাত্র ৭০০ লোকবল, মানে ১০ বর্গ কিলোমিটারে একজন। এটা বড় দুর্বলতা। সুন্দরবনে যে কাজেই যাক না কেনো নৌ লাইসেন্স ও অনুমতি নিশ্চিত করতে হবে। কোথাও কোথাও তা করতে পারিনি।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চোরা শিকারীদের পাশাপাশি বনের ভিতর দিয়ে লাগামহীনভাবে নৌচলাচল, সুন্দরবনের পাশে বৃহৎ আকার শিল্প অবকাঠামো নির্মান, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে লবণাক্ততা বৃদ্ধি, লোকালয় সংলগ্ন খাল-নদী ভরাট এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ বাঘের অস্তিত্ব রক্ষার পথে বাধা হচ্ছে।

বাংলাদেশ প্রাণিবিজ্ঞান সমিতির সাধারণ সম্পাদক তপন কুমার দে জানান, সুন্দরবনে বাঘের শিকার প্রাণীর মধ্যে চিত্রা হরিণ, শুকর, মায়া হরিণ ও বানর রয়েছে। বাঘের সংখ্যা বাড়াতে হলে শিকার প্রাণির সংখ্যা বাড়াতে হবে।

“এখনই সকলকে আমাদের জাতীয় প্রাণী বাঘ সংরক্ষণে এগিয়ে আসতে হবে। তা না হলে এ বিপন্ন প্রাণীটি দেশ থেকে অচিরেই হারিয়ে যাবে।”

রয়েল বেঙ্গল টাইগার

>> বিশ্বের সর্ববৃহৎ একক ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট (বাদাবন) সুন্দরবনে এই বাঘের বসবাস।

>> পূর্ণ বয়স্ক বাঘের ওজন সর্বোচ্চ ২২০ কেজি, বাঘিনীর ওজন সর্বোচ্চ ১৬০ কেজি।

>> প্রাকৃতিক পরিবেশে এরা ১০ থেকে ১৪ বছর বাঁচে। তবে বন্দি অবস্থায় আয়ু ১৮-১৯ বছর।

>> বাঘিনী ২-৩ বছর পর পর এক সাথে দুই থেকে তিনটি বাচ্চা দেয়। বাচ্চারা মায়ের সাথে থাকে দুই বছর।

>> তিন প্রজাতির বাঘ পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। যে ১৩টি দেশে বাঘ টিকে আছে সেগুলো হচ্ছে বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, চীন, ইন্দোনেশিয়া, কম্বোডিয়া, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, লাওস ও রাশিয়া।

বন অধিদপ্তরের বন্য প্রাণী অঞ্চলের বন সংরক্ষক অসিত রঞ্জন পাল বলেন, বাঘ রক্ষায় সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। শুক্রবার বিশ্ব বাঘ দিবস উপলক্ষে অগাস্টের শুরুতেও নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি নয়াদিল্লীতে সুন্দরবন বিষয়ক আন্তর্জাতিক এক অনুষ্ঠানের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে তিনি বলেন, “বাঘ রক্ষায় দুই দেশই প্রয়োজনীয় তথ্য ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করছে। ওই অনুষ্ঠানে আমরা বলেছি- বাঘ রক্ষা করতে হলে সুন্দরবন রক্ষা করতে হবে। এক্ষেত্রে জীববৈচিত্র্য রক্ষায় ভূমিকা রাখতে হবে সবার।”

এদিকে সুন্দরবনের ১৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাগেরহাটের রামপালে ভারতের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হলে তাতে বন ও বাঘের ক্ষতি হবে বলেও শঙ্কা রয়েছে পরিবেশবাদীদের একটি অংশের।

সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক সুলতানা কামাল বলেন, সুন্দরবনের এত কাছে এই কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হলে তা থেকে বিষাক্ত গ্যাস ও রাসায়নিক বর্জ্যে ‘নিশ্চিতভাবেই’ সুন্দরবনের জীব-বৈচিত্র্য ধ্বংস হবে এবং জলবায়ু পরিবর্তজনিত সঙ্কেটে ধ্বংসলীলার চারণভূমিতে পরিণত হবে।

অবশ্য প্রধান বন সংরক্ষক ইউনুছ আলীর বিশ্বাস, কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্রের কারণে সুন্দরবনে কোনো ‘নেতিবাচক’ প্রভাব পড়বে না।

“যারা রামপাল সম্পর্কে মন্তব্য করে তারা গভীরে যায় না, তাদের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। ইউনেস্কোর ‘রিয়েকটিভ মনিটরিং মিশন’ প্রতিনিধি দলও রামপালের বিষয়ে কোনো বিরূপ মতামত দেয়নি।”



এ সংবাদটি 557 বার পড়া হয়েছে.
এ সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •   
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

শিরোনাম

.......................................................................................................... ............................................................................................................. logo copy
12-4-300x214
সম্পাদক ও প্রকাশক মো. নাজমুল ইসলাম
নির্বাহী সম্পাদক : আমিনুল ইসলাম রোকন
সিলেট সুরমা মিডিয়া কর্পোরেশন কর্তৃক মুদ্রিত ও
সিটি সেন্টার (১০ম তলা),জিন্দাবাজার,
সিলেট থেকে প্রকাশিত।
ফোন : ০৮২১-৭১১০৬৯,
মোবাইল : (নির্বাহী সম্পাদক-০১৭১৫-৭৫৬৭১০ )
০১৬১১-৪০৫০০১-২(বার্তা),
০১৬১১-৪০৫০০৩(বিজ্ঞাপন), ইমেইল : www.sylhetsurma2011@gmail.com
ওয়েব : www.sylhetsurma.com
শিরোনাম :
সারাদেশ জুড়ে ফাহিম বিচরণ করবে খেলার মাঠে : কাউন্সিলর লিপন জগন্নাথপুরে র‍্যাবের হাতে ২ অস্ত্র ব্যবসায়ী আটক সাংবাদিক ইকবাল মনসুর-গুরুতর অসুস্থ : মেডিকেল বোর্ড গঠিত ৩ সন্তানের জননীকে হত্যার অভিযোগ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সিলেট ইউনিট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ হাওয়া ভবনে তারেক রহমান, হারিছ, বাবর, মুফতি হান্নান ও মাওলানা তাজউদ্দিনকে দেখেছি : সাক্ষি রশিদ শিক্ষার্থীদের কল্যাণেই পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণীর পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করা হয়েছে গোলাপগঞ্জে অস্ত্র ও গুলিসহ ২ ডাকাত গ্রেপ্তার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আ’লীগ নেতা বিজিত চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা ওসমানীনগরে দুর্ধর্ষ ডাকাতি স্বর্ণশিখা সমাজকল্যাণ সমিতির জরুরী সভা আগামী বুধবার রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় তারেক রহমানের বিচার শুরু তারেক রহমানের জন্মদিনে কেক কাটলো সিলেট জেলা ও মহানগর যুবদল নতুন উপজেলা হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ অপপ্রচারে আমি বিব্রত রেড ক্রিসেন্ট সিলেট ইউনিটের সদ্য ঘোষিত এডহক কমিটি স্থগিত কদমতলীর বাসিন্দা লিলু উরফে কালা মিয়ার ইন্তেকাল রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সহযোগিতার প্রস্তাব জাপানের রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জার্মানী, সুইডেন ও ইইউ’র জোরালো সমর্থন রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা মানবাধিকারের মৌলিক লঙ্ঘন : মার্কিন সিনেটর নগরীতে মহড়া দিলেন ভোলাগঞ্জের শামীম বড়লেখায় ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি গ্রেপ্তার পুলিশের অভিযানে অফিসার চয়েসসহ গ্রেপ্তার ১ রাজনগরে গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সিলেট মহানগর এর ১৮ নং ওয়ার্ড কমিটি গঠন শিবগঞ্জের খলিল হত্যা মামলার আসামীরা কর্তৃক প্রবাসীর ভু-সম্পত্তি আত্মসাতের পায়তারা ন্যাপ ভাসানীকে বাদ দিয়ে কেউ ক্ষমতায় যেতে পারবে না : বঙ্গদ্বীপ এম.এ খান ভাসানী প্রযুক্তির এ যুগে মাদরাসা শিক্ষার্থীদের যুগোপযোগী শিক্ষা অর্জন অপরিহার্য : ড. এ.কে.এম আব্দুল মোমেন বিশ্বনাথে শিশু নির্যাতনকারীদের হাতে হয়রানীর শিকার অসহায় পরিবার গালিমপুর কমিউনিটি ক্লিনিক উদ্বোধন করলেন ডাঃ মুশফিক চৌধুরী নাগরিক সমাবেশ কোন রাজনৈতিক পাল্টাপাল্টি সমাবেশ নয় : ওবায়দুল কাদের জামালগঞ্জে ইয়াবা ও গাজাসহ গ্রেপ্তার ২ গোলাপগঞ্জে নদী থেকে বালু তোলার জেরে সংঘর্ষ, আহত ২ হবিগঞ্জে ৬৬ কেজি গাঁজা জব্দ পরিবহন নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফলিকের উপর হামলা হাজী সামস উদ্দিন’র মৃত্যুতে হাজী গুলজারের শোক প্রকাশ হাজী রাশীদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি আব্দুল কুদ্দুসের স্মরণে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল দক্ষিণ সুরমার মোহনা আইডিয়াল একাডেমীর প্রবেশপত্র বিতরণ অনুষ্ঠান দক্ষিণ সুরমায় মাদকাসক্তি, আত্মহত্যা প্রতিরোধ ও সচেতনতামূলক সেমিনার ভাসানীর ৪১তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা শনিবার দক্ষিণ সুরমার পূর্ণাখলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ হাজী সামস উদ্দিন এর মৃত্যুতে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের শোক প্রকাশ দক্ষিণ সুরমার খোজারখলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণ হযরত শাহপরাণ (রহ.) বাৎসরিক ওরস ২৪ নভেম্বর শুরু সিলেটে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির নতুন কমিটির অনুমোদন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আইন- শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত তরুণীকে ধর্ষণের পর হত্যা : ছাত্রলীগের চার নেতা বহিষ্কার চুক্তি স্বাক্ষরের ৩ সপ্তাহের মধ্যে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়া হবে : সু চি সাংবাদিক নিজামুল হক লিটনকে হত্যার হুমকি