প্রচ্ছদ

পাকিস্তানি সেনাদের আচরণে মুগ্ধ ভারতের পাইলট অভি নন্দন

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:৫০

sylhetsurma.com

সিলেট সুরমা ডেস্ক : নেতৃত্বের পর্যায়ে বাকযুদ্ধ এবং সীমান্তে একরকমের যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করলেও পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে আটক ভারতের যুদ্ধবিমানের সেই পাইলট যেন ‘শান্তির বাতাস’ বইয়ে দিলেন। পাকিস্তান সেনাদের হেফাজতে থাকা উইং কমান্ডার অভি নন্দন নামে ওই পাইলটের একটি ভিডিওবার্তা ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।  যেখানে চায়ের কাপ হাতে অভিকে বলতে শোনা যায়, তিনি পাকিস্তানি সেনাদের আচরণে মুগ্ধ।

বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে ভারতের দু’টি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি করে ইসলামাবাদ জানায়, তারা ভারতের দুই পাইলটকে আটক করেছে। এদেরই একজন অভি নন্দন।  বিবাহিত অভি ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের একটি এলাকার বাসিন্দা।

সামরিক বিধি অনুযায়ীই ভারতের এই পাইলটের সঙ্গে আচরণ করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) মুপখাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর।  যদিও আটক হওয়ার সময় অভির মুখ দিয়ে রক্ত ঝরছিল এবং তাকে বিপর্যস্ত লাগছিল।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো অভি নন্দনের ওই নতুন ভিডিওতে দেখা যায়, তার ক্ষতস্থান পরিচ্ছন্ন করে উষ্ণ কাপড় পরানো হয়েছে। চায়ের কাপ হাতে এসময় অভিকে বেশ প্রফুল্ল ও চনমনে দেখাচ্ছিল। ইংরেজিতেই অভি নন্দনকে বলতে শোনা যাচ্ছিল, তার কথাগুলো যেন রেকর্ড করা হয়। এরপর তিনি জানান, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী তার দেখভাল করছে এবং তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, যেন ভারতীয় সেনারাও পাকিস্তানি কর্মকর্তাদের সঙ্গে একইরকম সৌজন্য দেখায়।

ভিডিওতে পাকিস্তানি সেনাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে দৃপ্তকণ্ঠে জবাব দিতে দেখা যায় অভিকে।  তিনি জানান, তিনি বিবাহিত এবং ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের বাসিন্দা।

যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর তাকে উদ্ধার করায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানান অভি।  চা ‘চমৎকার’ হয়েছে বলে তার জন্যও ধন্যবাদ দেন উইং কমান্ডার অভি।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকেলে কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় ভারতের বিশেষায়িত নিরাপত্তা বাহিনী সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) গাড়িবহরে ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় ৪৪ জওয়ান নিহত হন।

জঙ্গিদের মদত দেওয়ার জন্য ইসলামাবাদকে অভিযুক্ত করে এর মোক্ষম জবাব দিতে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোরের দিকে পাকিস্তানের বালাকোট শহরে জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদের আস্তানায় হামলা চালায় ভারতীয় বিমান বাহিনী। হামলায় প্রায় ৩০০ জঙ্গি নিহত হয় বলে দাবি করে ভারত। এর একদিন পরই ভারতের দু’টি যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত ও দু’জন পাইলট আটক করার দাবি করে পাকিস্তান।

অবশ্য বুধবার বিকেলে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতকে সতর্ক করে বলেন, ‘যে অস্ত্র আপনাদের আছে, সে অস্ত্র আমাদেরও আছে। যুদ্ধ বেঁধে গেলে কিন্তু পরিস্থিতি কারোরই নিয়ন্ত্রণে থাকবে না।’ পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে ভারতকে শান্তির স্বার্থে সংলাপে বসার আহ্বানও জানান তিনি।

  •  
  •