মোটর সাইকেল তুমি কার…!

প্রকাশিত: ৪:৫৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০১৭

শিপন আহমদ :
দক্ষিণ সুরমা থেকে পরিত্যাক্ত অবস্থায় উদ্ধারকৃত মোটর সাইকেল নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। গত ০৩ অক্টোবর দুপুরে দক্ষিণ সুরমার নর্থইষ্ট মেডিকেলের সামন থেকে কালো রং এর ডিসকোভার মোটরসাইকেল যার নং সিলেট ল-১১-৩১৮২ উদ্ধার করে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ। মোটর সাইকেলের মালিক দাবিদার মোঃ দবির হোসেন ও আরেক দাবিদার কামরুল ইসলাম। এই দুই মালিকানা নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ধু¤্রজাল।

এ বিষয়ে আদালতে একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন দক্ষিণ সুরমা থানার এএসআই মহিউদ্দিন। প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ্য করেন, যে সিরেয়া ডিউটি করার সময় পরিত্যাক্ত অবস্থায় তিনি দক্ষিণ সুরমার নর্থইষ্ট মেডিকেলের সামন থেকে মোটর সাইকেলটি উদ্ধার করেন। পরে থানায় এসে মোটর সাইকেল দাবী করেন সুনামগঞ্জ জেলার সদর থানার ব্রাক্ষণগাঁও এলাকার বাসিন্দা মোঃ আব্দুল হান্নানের পুত্র মোঃ দবির হোসেন। বর্তমানে তিনি এয়ারপোর্ট থানার ফাজিল চিশত মেডিকেল ইনফরমেশন অফিসার এ্যারিস্টোর্ফামা লিঃ কর্মরত আছেন। দবির হোসেন থানায় এসে জানান তিনি প্রায় তিনমাস পূর্বে গাড়ীটি ক্রয় করেছেন ১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দিয়ে জামাল উদ্দিনের কাছ থেকে। জামাল উদ্দিন জানান, গোলাপগঞ্জ উপজেলার কানিশাইল গ্রামের নজির উদ্দিনের ছেলে মোঃ দিলোয়ার হোসেনের কাছ থেকে তিনিও কিনেছেন। দিলোয়ার হোসেনের খোজ করলে তার পিতা নজির উদ্দিন বলেন, তার ছেলে প্রবাসে চলে গেছে।
এদিকে শাহপরাণ থানার দাসপাড়ার হাজী মছদ্দর আলীর পুত্র কামরুল ইসলামও দাবী করেছেন গাড়ীটি তার। ২০১১ সালে জিন্দাবাজারস্থ ওয়েস্ট ওয়ার্ল্ড শপিং সিটির পার্কিং থেকে গাড়িটি চুরি হয়েছে। যদি কামরুল ইসলাম গাড়ীর মূল মালিক হন তাহলে এই তিন জন কে? একটি সূত্র জানিয়েছে নগরী থেকে যদি মোটর সাইকেল চুরি হয় তাহলে আবার একই এলাকায় বিক্রি হয় কি ভাবে? মালিক দাবীদার কামরুল ইসলামের ছোট ভাই জুনেদ আহমদ জানান, ২০১১ সালে তাদের গাড়ী চুরি হয় কতোয়ালী থানায় মামলাও হয়। গাড়ীর কাগজ কোথায় জানতে চাইলে তিনি বলেন, অনেক দিন হয়ে গেছে খুজে পাচ্ছিনা তবে পেয়ে যাবো। তবে আরেক দাবীদার দবির হোসেনের মোবাইলে বার বার কল দিলে তিনি কল রিসিভ করেননি।
এ ব্যাপারে এসএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল-মূসা জানান, আদালত যাকে দেবে সেই মোটর সাইকেলের মালিক হবে আর যদি এই তিন জনের বিরুদ্ধে চুরির সাথে সংস্লিস্ট কোন তথ্য প্রমান পাওয়া যায় তা হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

অতিথি লেখক : শিপন আহমদ,আলোকচিত্রী,দৈনিক নয়াদিগন্ত

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ