• ১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

২০৪৫ সাল নাগাদ রাশিয়ায় বিদ্যুতের ২৫ শতাংশ আসবে পরমাণু উৎস থেকে

sylhetsurma.com
প্রকাশিত মে ১২, ২০২৪
২০৪৫ সাল নাগাদ রাশিয়ায় বিদ্যুতের ২৫ শতাংশ আসবে পরমাণু উৎস থেকে

রাশিয়ার অভ্যন্তরীণ পারমাণবিক শিল্পের উন্নয়ন লক্ষ্য সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জানিয়েছেন, ২০৪৫ সাল নাগাদ দেশটির মোট উৎপাদিত বিদ্যুতের ২৫ শতাংশ আসবে পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো থেকে।

তিনি সম্প্রতি রাশিয়ার লেনিনগ্রাদ পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের অধীনে নতুন একটি ইউনিটের (ইউনিট ৭) প্রথম কংক্রিট ঢালাই অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে এ কথা জানান।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি করপোরেশন রসাটমের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়। বাংলাদেশেও একই প্রযুক্তিতে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করছে রাশিয়া।

অনুষ্ঠানে ভ্লাদিমির পুতিন বলেন, নতুন এ বিদ্যুৎ ইউনিটের নির্মাণ আমাদের নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জনে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে। এর মাধ্যমে পুরো উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলের জ্বালানি নিরাপত্তার উন্নয়ন ঘটবে এবং ভবিষ্যতে আমরা আরও বেশি পরিবেশবান্ধব ও পরিচ্ছন্ন বিদ্যুতের যোগান পাব।

একই অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে রাশিয়ায় বর্তমানে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাস্তবায়ন সম্পর্কে রসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ জানান, আমরা বর্তমানে কুরস্ক এনপিপিতে দুটি ইউনিট নির্মাণ করছি, যেগুলোর কাজ প্রায় সমাপ্তির পথে। আমরা পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের নতুন নতুন স্থান নির্বাচন করছি।

তিনি বলেন, উরাল অঞ্চলে পারমাণবিক বিদ্যুতের উৎপাদন উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে সাইবেরিয়া অঞ্চলেও এর বিস্তার ঘটানোর উদ্যোগ হাতে নিয়েছি। আমাদের ভবিষ্যৎবাণী অনুযায়ী এ অঞ্চলগুলোতে বিদ্যুতের চাহিদা সবচেয়ে বেশি বাড়বে।

লেনিনগ্রাদ এনপিপির নতুন ইউনিটটির রিঅ্যাক্টর ভবনের ভিত্তি চলতি গ্রীষ্মেই প্রস্তুত হয়ে যাবে। এরপরই শুরু হবে রিঅ্যাক্টর ভবনের অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক কন্টেইনমেন্টসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ এবং বিভিন্ন ইকুইপমেন্ট স্থাপন প্রক্রিয়া।

নতুন এ ইউনিটে স্থাপিত হবে সর্বাধুনিক থ্রি প্লাস প্রজন্মের ভিভিইআর-১২০০ রিয়্যাক্টর। বাংলাদেশের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের উভয় ইউনিটে একই ধরনের রিঅ্যাক্টর স্থাপন করা হয়েছে।