৭ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ, আটক ২

প্রকাশিত: ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৫

কুলাউড়া প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের রাজনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগে কুলাউড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার পর বুধবার (২৪ আগস্ট) অভিযুক্ত মাছুম ও তাঁর সহযোগী সিএনজি চালক জহির আলী (২০)কে সিএনজি অটোরিক্সাসহ আটক করেছে পুলিশ।
পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ইউনিয়নের সুজানগর গ্রামের মৃত আব্দুল মিয়ার মেয়ে ও রাজনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী গত মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) সকালে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে রাজনগর মসজিদের পাশ থেকে অপহরণ করে একটি সিএনজি অটোরিক্সাযোগে একই ইউনিয়নের পাশ্ববর্তী মুড়ইছড়া এলাকায় নিয়ে ধর্ষণ করে মাছুম। পরে বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে রবিরবাজার আশা এনজিও অফিসের পাশে মাছুম সিএনজি অটোরিক্সা থেকে মেয়েটিকে রেখে পালিয়ে যায়। ওই অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে কুলাউড়া সরকারী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন। বর্তমানে সে ওইখানে চিকিৎসাধীন আছে। ছাত্রীর ভাই ইমরান আহমদ জানান, আমার ছোট ভাই বাড়িতে এসে স্কুলে সে (বোন) উপস্থিত হয়নি জানালে আমরা তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করি। পরে জানতে পারি বখাটে মাছুম আমার বোনকে অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণ করে আবার রবিরবাজারে রেখে পালিয়ে যায়। এঘটনায় ওই স্কুল ছাত্রীর ভাই বুধবার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। কুলাউড়া থানার এসআই নুর হোসেন বুধবার অভিযান চালিয়ে পৃথিমপাশা ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে অটোরিক্সা চালক জহিরকে সিএনজি অটোরিক্সা (মৌলভীবাজার থ ১২ ২০৬৩) সহ আটক করেন এবং বিকেল ৫টার দিকে আমানীপুর গ্রামের বটল মিয়ার ছেলে ধর্ষক মাছুমকে তাঁর বাড়ি থেকে আটক করেন। এসআই নুর হোসেন বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মাছুমসহ ও সিএনজি চালক জহিরকে আটক করা হয়েছে। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ