মিছিল-সমাবেশে উত্তাল নগরী

প্রকাশিত: ৪:০৮ পূর্বাহ্ন, ডিসেম্বর ৩, ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার :
রাজনৈতিক বিভেদ ভুলে মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের জন্যে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নামলেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা।  শুক্রবার দুপুরে সিলেট নগরীতে আয়োজিত এক সমাবেশে আওয়ামী লীগ-বিএনপি-হেফাজতসহ সিলেটের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা অংশ নিয়ে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার দাবি জানান। এই সমাবেশ থেকে সিলেটের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতারা ঐক্যবদ্ধভাবে রোহিঙ্গাদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সাম্প্রতিক অতীতে সিলেটের বিভিন্ন দলের নেতাদের এভাবে একই সমাবেশে একই সুরে কথা বলতে দেখা যায়নি। শুক্রবার দুপুরে নগরীর কোর্ট পয়েন্টে এই সমাবেশের আয়োজন করে সিলেট মহানগর ইমাম সমিতি। সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার দাবি জানান। নির্যাতন বন্ধে জাতিসংঘকে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান কামরান।
কামরান বলেন, অসহায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার দাবি এ দেশের ১৬ কোটি মানুষের। সরকার প্রধান ও বর্তমান সরকার এসব অসহায়দের আশ্রয় দেয়ারও চেষ্টা করছেন। প্রয়োজনে সাধারণ মানুষও সরকারকে সহযোগিতা করবে। তিনি বলেন- বিশ্বের কোথাও মুসলমান হত্যা হলে জাতিসংঘ শক্তিশালী ভূমিকা রাখে না। আমরা জাতিসংঘের মায়াকান্না দেখতে চাই না। অবিলম্বে জাতিসংঘকে প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে মিয়ানমারে মুসলমান হত্যা বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।
মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ বলেন, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদ ওবায়দুল কাদেরের নির্দেশে এই সমাবেশে একজন মুসলমান হিসাবে ইমানী দায়িত্ব পালন করতে আমি উপস্থিত হয়েছি। এই গণহত্যা ও রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধ করতে মিয়ানমান সরকারের প্রতি আহবান জানান তিনি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে জাতিসঙ্ঘের ভূমিকার সমালোচনাও করেন তিনি।
সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, মিয়ানমারে নির্যাতিন হয়ে রোহিঙ্গারা আশ্রয়ের জন্য বাংলাদেশ আসে বিজিবি তাদের ফিরিয়ে দিচ্ছে। যা অমানবিক।imam-somiti-pic-02-12-2
এই সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, হেফাজতে ইসলামের নেতা সাবেক সাংসদ শাহিনুর পাশা চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম নাদেল, বিএনপি নেতা ও সিলেট সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, জাতীয় পার্টি নেতা এডভোকেট আব্দুল কাইয়ুম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম নেতা হাফেজ আবদুর রহমান সিদ্দিকীসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সমাবেশের আগে নগরীর বিভিন্ন মসজিদ থেকে মুসল্লিরা খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে কোর্ট পয়েন্টে এসে জড়ো হন।
এদিকে সিলেট নগরী সহ বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর বর্বর নির্যাতন ও তাদের রক্ষার দাবিতে পৃথক মিছিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সিলেট সদর থানা খেলাফত মজলিস : মিয়ানমার সরকার কর্তৃক গণহত্যার প্রতিবাদে এবং গণমানুষের অধিকার রক্ষার জন্য বাংলাদশ খেলাফত মজলিস সিলেট সদর থানার উদ্যোগে শুক্রবার বাদ জুম্মা নগরীর টুকের বাজার থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে তেমুখী পয়েন্টে এসে এক সমাবেশে মিলিত হয়।
সমাবেশে টুকের গাঁও, শাহ খুররম, পীরপুর, হায়দরপুর, চরগাঁও, কুমারগাঁও, সাহেবের গাঁও ও শেখপাড়া থেকে মিছিল শুরু হয়ে উক্ত সমাবেশে মিলিত হয়ে বিশাল রূপ ধারণ করে।
সদর উপজেলা সভাপতি হাফিজ কাজী জুনাইদ আহমদের সভাপতিত্বে ও সহ সভাপতি মাও. গোলাম রব্বানীর পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মাও. শিব্বির আহমদ, মাও. জাহেদ আহমদ, মাও. জসিম উদ্দিন, হাফিজ আশিকুর রহমান, মাও. এমদাদ উল্লাহ, হাফিজ মাও. আতাউর রহমান, মাও. ক্বারী নুরুল ইসলাম, মাও.আব্বাস উদ্দিন, মাও. মঈন উদ্দিন, হাফিজ ইমামূল হক, মাও. কামাল উদ্দিন, নাজিম উদ্দিন, ক্বারী রবিউল হক, ছাত্রনেতা আলতাফ হোসেন সুমন, ছাত্রনেতা হেলাল আহমদ, প্রকৌশলী আবুজর মো. গউদ, যুব নেতা আল আমিন প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্বিচারে হত্যা করছে। অথচ বিশে^র মানবাধিকার সংস্থা সহ জাতিসংঘ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। যা সত্যিই দুঃখজনক। বক্তারা অবিলম্বে এই গণহত্যা বন্ধের জোর দাবী জানান এবং বাংলাদেশ সীমান্তে আশ্রয়ের জন্য আগত রোহিঙ্গা মুসলিমের আশ্রয় প্রদানের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।
জামেয়া আবু হুরায়রা (রা.) আল ইসলামিয়া : দীর্ঘদিন ধরে মায়ানমারে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হচ্ছে, অসংখ্য নারী-পুরুষ ও শিশুদের হত্যা করে তাদেরকে দেশ থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে।  প্রতিদিন হত্যাযজ্ঞের পাশাপাশি নিরীহ মুসলিম নারীদের ধর্ষণ করা হচ্ছে। যা বর্বরতার যুগকেও হার মানিয়েছে। পৃথিবীর কোন জাতিই নির্যাতন করে টিকে থাকতে পারে নাই এবং কোন জাতিকেই নির্যাতন, হত্যা ও দেশ ছাড়া করে ধ্বংস করা যায় না। বরং, নির্যাতনকারীরাই যুগে যুগে ধ্বংস হয়ে গেছে। এ নির্যাতন বন্ধে সকল মুসলমানদের সোচ্চার ভূমিকা রেখে মুসলিম রাষ্ট্রগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে।
জামেয়া আবু হুরায়রা (রা.) আল ইসলামিয়া-র উদ্যোগে রোহিঙ্গা মুসলমানদের গণহত্যা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধনে বক্তারা একথা বলেন। গতকাল শুক্রবার সিলেটের সাহেব বাজার রোডস্থ নতুন বাজারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।khelafot-mojlis-pic
জামেয়া আবু হুরায়রা (রা.) আল ইসলামিয়া-র ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল মাওলানা ইয়াহইয়া খানের সভাপতিত্বে ও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক মাওলানা আব্দুল¬াহ আল ফারুকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন সালুটিকর ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আমিনুর রহমানর আলামিন, মহালদিক জামে মসজিদের মোতাওয়ালি¬ মোবারক আলী, জামেয়া আবু হুরায়রা রা. আল ইসলামিয়া-র শিক্ষক হাফিজ মাওলানা আব্দুল মুমিন, মাওলানা ওলিউর রহমান মাসুম, মুফতি মাওলানা আব্দুর রহমান, হাফিজ আমজাদ আলী, মাওলানা ইমদাদুর রহমান, মাওলানা মুফতি বদরুল ইসলাম, মাওলানা কামরুল হক, হাফিজ মাওলানা আব্দুস শহিদ, হাফিজ মাওলানা জাকারিয়া, মাওলানা কয়েছ আহমদ, হাজী রোশন আলী, মোঃ ময়নুল হক, হাজী ফয়জুল হক, নিজাম উদ্দিন, ফজলুল করিম, হাফিজ বাহার উদ্দিন, হাফিজ মোঃ ইমদাদ উল¬াহ, হাফিজ মাওলানা হারুনুর রশিদ, হাফিজ মাওলানা রহিম উদ্দিন, বিশিষ্ট মুরুব্বী নূরুল হক, রইছ আলী, ওয়াহিদ মিয়া, আফরোজ মিয়া, সালিক আহমদ, আব্দুর রকিব, মাওলানা কয়েছ আহমদ, লিওয়ার আহমদ, জামেয়ার ছাত্র  রুমান আহমদ, হাফিজুর রহমান, শাকিল আহমদ, হামিদুর রহমান, তোফায়েল আহমদ, দীন ইসলাম, হাফিজ দিলওয়ার, হাফিজ আঃ জব্বার, সাফওয়ান আহমদ, সুহেল আহমদ, শুয়েব আহমদ, হাসান আহমদ, আকমল হোসাইন, জামাল আহমদ, জুনেদ আহমদ, মহসিন আহমদ প্রমুখ।
উত্তর কাজিটুলা এলাকাবাসী : মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানের উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে উত্তর কাজিটুলা এলাকাবাসির উদ্যোগে শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর স্থানীয় উত্তর কাজিটুলা জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে এক প্রতিবাদি মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে উত্তর কাজিটুলা, ইলেকট্রিক সাপ্লাই, কলবাহানী, গোয়াইটুলা, উচা সড়ক, শাহী ঈদগাহ সহ আশপাশ এলাকার শত শত মুসল্লি অংশ গ্রহণ করে মায়ানমারের নির্যাতিত মুসলমানের প্রতি সমবেদনা নিহতদের স্মরণ করেন। সাথে সাথে মায়ানমার সরকারের প্রতি তীব্র ঘৃণা ক্ষোভ প্রকাশ অনতিবিলম্বে ইতিহাসের এমন জঘন্যতম হত্যা ও নির্যাতন বন্ধ এবং আহত ক্ষতিগ্রস্ত মুসলমানদের পুনর্বাসন করে ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানান। পাশাপাশি অনন্যা মুসলিম রাষ্ট্রকে অসহায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানান। একালাবাসির পক্ষে মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ পরিচালনা করেন আব্দুল আহাদ এলিছ। সভাপতিত্ব করেন উত্তর কাজিটুলা জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব খলিলুর রহমান হাবিবী। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় এলকার মুরব্বি মসজিদের মোতাওয়াল্লী কুতুব উদ্দিন আহমদ, সেক্রেটারি নুর উদ্দিন আহমদ, সাবেক ইমাম শরীফ উদ্দিন, সাংবাদিক আব্দুল মালিক জাকা, আব্দুর রব, এড. আব্দূল মুকিত,  এহিয়া, জাবেদ, মুন্না, পাপলু, অন্তরঙ্গ ক্রীড়া চক্রের সাধারণ সম্পাদক  সাংবাদিক মিসবাহ উদ্দিন আহমদ, উত্তর কাজিটুলা ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ  ইকবাল হোসেন, মিলেনিয়াম মার্কেটের সহ সভাপতি আব্দুল হান্নান দুদু, জামিল আহমদ, বাবলু, জামাল, সাংবাদিক আকমল হোসেন সুমন, মিফতাহ, পাবেল, আব্দুর রব, সালাহউদ্দিন, রাসেল, রাজিব, বাকির, আজমল, আকাশ, কাবুল, আব্দুল কাইয়ুম, শামিম, নুর মোহাম্মদ, ছোট মিয়া, আব্দুল করিম, সাজু, সাদ্দাম, বখতিয়ার, ইমরান, লিমন,শাকিল, আশফাক, তপু, সাঈদ ইমাদ, আব্দুল করিম প্রমুখ। মানববন্ধন শেষে বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতির ১৭ নং ওর্য়াড শাখার আয়েজিত বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেন উত্তর কাজিটুলা এলাকাবাসি।musli-oeku-pic-2-12-16
মুসলিম ঐক্য পরিষদ : মুসলিম ঐক্য পরিষদ বাংলাদেশের উদ্যোগে মিয়ানমারের রাখাইন অঙ্গরাজ্যের রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর অমানবিক নির্যাতন, নির্মম হত্যা, ঘরবাড়ি জ¦ালিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে ও গণহত্যা বন্ধের দাবিতে গতকাল ২ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুম্মা সিলেট নগরীর সিটি পয়েন্টে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সিলেটের সকল রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
মুসলিম ঐক্য পরিষদ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাওলানা আসলাম রহমানীর সভাপতিত্বে ও সংগঠনের মহাসচিব মুফতী মুশতাক আহমদ ফুরকানীর পরিচালনায় মানববন্ধনে ও সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদুল হাসান, ইসলামী ঐক্যজোট নেতা ডাঃ হাবিবুর রহমান, মাদানী কাফেলার বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী, মুসলিম ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা আজিজুর রহমান, মাওলানা ক্বারী আবু ইউসুফ চৌধুরী, মাওলানা আব্দুল্লাহ মাছুদ, মাওলানা শায়েখ সাইফ উদ্দীন, মুফতী সাদিকুর রহমান, মাওলানা সিফত উল্লাহ, মাওলানা আজিজুর রহমান, হাফিজ আশরাফ, মাওলানা ফখরুল ইসলাম নোমান, প্রিন্সিপাল মাওলানা জহিরুল হক, মাওলানা আখলাকুর রহমান, মাওলানা এনামুল হক মামুন, মাওলানা নোমান আহমদ, মাওলানা হাফিজ আব্দুল হাই প্রমুখ।
সমাবেশে বক্তাগণ বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্বিচারে হত্যা করছে। অথচ বিশে^র মানবাধিকার সংস্থা সহ জাতিসংঘ নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। যা সত্যিই দুঃখজনক। বক্তারা অবিলম্বে এই গণহত্যা বন্ধের জোর দাবী জানান এবং বাংলাদেশ সীমান্তে আশ্রয়ের জন্য আগত রোহঙ্গিা মুসলিমের আশ্রয় প্রদানের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।
বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারর্স ফোরাম : মিয়ানমার সরকার কর্তৃক গণহত্যার প্রতিবাদে এবং গণমানুষের অধিকার রক্ষার জন্য বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারর্স ফোরাম, স্বপ্ন রক্তদান ও সমাজ কল্যাণ সংস্থা সিলেটের আয়োজনে শুক্রবার বাদ জুম্মা নগরীর জিতু মিয়ার পয়েন্টে এক মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারর্স ফোরাম এর সভাপতি হৃদয় খানের সভাপতিত্বে ও স্বপ্ন রক্তদান ও সমাজ কল্যাণ সংস্থা সিলেটের সভাপতি তৌকির আহমদ শাওনের পরিচালনায় মানববন্ধনে প্রধান বক্তব্য রাখেন সিলেট কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এহসানুল হক তাহের।
বক্তব্য রাখেন স্বপ্ন রক্তদান ও সমাজ কল্যাণ সংস্থা সিলেটের তোফায়েল আহমদ সবুজ,  বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারর্স ফোরামের মো. ফখর উদ্দিন, হৃৎপিন্ডের গুফরান আহমদ চৌধুরী, নির্বান সিলেটের সভাপতি কামাল হোসেন খান, বাংলাদেশ ব্লাড ডোনারর্স ফোরামের সহ সভাপতি রাতুল সরকার, সাধারণ সম্পাদক ফখর উদ্দিন আহমদ, দপ্তর সম্পাদক নাঈম খান, প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন, অর্থ সম্পাদক ইসমাইল আহমদ, সদস্য জালাল আহমদ, স্বপ্ন রক্তদান ও সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা রেদওয়ানুল করিম মাসউদ, আবু বকর দিপু, তোফায়েল আহমদ সবুজ, নাজিম উদ্দিন, বাজী সাবিলা, লোকমান হোসেন তারেক, রুনা বেগম, শুভ আবির আহমদ শুভন, আমিনুল ইসলাম মুন্না, ফয়েজ আহমদ, হাসান জাকির শাওন, হৃৎপিন্ডের প্রতিষ্ঠাতা জাহাঙ্গির আলম, মালেক চৌধুরী, মঞ্জির আলম, গুফরান আহমদ চৌধুরী, তৌফিক আহমদ, সাহেদ আহমদ, মাজহার আলম লস্কর প্রমুখ।
বরইকান্দি এলাকাবাসী : দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বরইকান্দি এলাকাবাসী এবং ইয়াং ফ্লাওয়ার ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে মিয়ানমারের রাখাইন অঙ্গরাজ্যের রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর অমানবিক নির্যাতন, নির্মম হত্যা, ঘরবাড়ি জ¦ালিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে ও গণহত্যা বন্ধের দাবিতে গতকাল ২ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুম্মা আনসার মিস্ত্রী জামে মসজিদের সামন থেকে এক বিক্ষোভ মিছিল হয়। মিছিলটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কীন ব্রিজের দক্ষিণ মুখে এক সমাবেশে মিলিত হয়।
আনসার মিস্ত্রী জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মুফতী আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও ইয়াং ফ্লাওয়ার ক্লাবের সভাপতি দিলোয়ার হোসেন রানার পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন প্রবীণ মুরব্বী আব্দুল মুছাব্বির লিলু, ক্লাবের উপদেষ্টা মাওলানা মুজিবুর রহমান, কামাল হাসান জুয়েল, এডভোকেট খালেদ জুবায়ের, নুরুল ইসলাম রুহেল, বাবর আহমদ রনি, ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম জাকি, জাহিদ আহমদ, কুতুব মিয়া, ইমরানুল ইসলাম জামিল, জাকির আহমদ, মুফতী নুরুল আমিন, আব্দুল করিম পিন্টু, এডভোকেট মঈনুল ইসলাম, সাজ্জাদুর রহমান, জাবেদ আহমদ, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ। এছাড়াও ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদ থেকে জুম্মার নামাজ শেষে মুসল্লিগণ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে অংশ গ্রহণ করেন।
আল্লামা মুফাজ্জল আলী (রহ.) গণকল্যাণ পরিষদ : দক্ষিণ সুরমা উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের আল্লামা মুফাজ্জল আলী (রহ.) গণকল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে মিয়ানমারে আরাকানে রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর বর্বর নির্যাতন ও গণহত্যার প্রতিবাদে গত ২৮ নভেম্বর বিকেলে দাউদপুর চৌধুরী বাজারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।
গণকল্যাণ পরিষদের সভাপতি মাওলানা এনামুল হকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হাফিজ সালেহ আহমদ শাকির ও মাওলানা মামুনুর রশীদের যৌথ পরিচালনায় মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা জমিয়তের সভাপতি হাফিজ মাওলানা শরীফ আহমদ শাহান, দাউদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আহমদ হোসেন খোকন, সমাজকর্মী শাহিন আহমদ, মাওলানা মিসবাহ উদ্দিন, হাফিজ আব্দুল কাদির, মাওলানা শুয়াইব আহমদ। বক্তব্য রাখেন মাওলানা বদরুল আলম, শিব্বির আহমদ মাসুম, তাহনিম হাসান, রায়হান আহমদ, মাহমুদুল হাসান, ফাহিম আহমদ, মাহফুজ আহমদ, ফারুকুর রশিদ মুন্না, নজরুল ইসলাম, শামসুজ্জামান, তায়েফ আহমদ, সাহেদ আহমদ, আমিনুল হক রায়হানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
বাসদ : মিয়ানমারের সামরিক সরকার ও সাম্রাজ্যবাদের মদদে রোহিঙ্গাদের উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ সিলেট জেলা শাখার উদ্যেগে সিলেটে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত।
শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৬ টায় নগরীর কাজিটুলা পয়েন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে নগরীর গুরুত্ব পূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কাজিটুলা বাজারে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
বিক্ষোভ সমাবেশ বাসদ সিলেট জেলা শাখার সমন্বয়ক আবু জাফরের সভাপতিত্বে ও বাসদ জেলা সদস্য প্রণব জ্যোতি পালের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বাসদ সিলেট জেলা সদস্য জুবায়ের আহমদ চৌধুরী সুমন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট জেলার সাধারন সম্পাদক শাহজান আহমদ, ছাত্রফ্রন্ট মহানগর সভাপতি পাপ্পু চন্দ, শ্রমিক ফ্রন্ট জেলা নেতা মামুন ব্যাপারী, কাজিটুলা শাখার আহবায়ক মো: মাহবুব আলম, রফিকুল ইসলাম, শাহরিয়ার আলম মন্জু, মো: রকিব হাওলদার, মো: সবুজ গরামী, মো: হুমাযূন কবীর প্রমুখ।
বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা বলেন, মায়ানমারের সামরিক সরকার যখন রোহিঙ্গাদের উপর বর্বরোচিত হামলার চালাচ্ছে তখন জাতিসংঘ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করচ্ছে। সাম্রাজবাদী মোড়লেরা এই বর্বর হামলা বন্ধে মিয়ানমারের সামরিক সরকারকে চাপ প্রয়োগ না করে বাংলাদেশে আশ্রয় দেওয়ার মায়া কান্না করছে। বক্তারা মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের প্রতি সমবেদনা জানান এবং বর্বর হামলার জন্য মিয়ানমার সরকারের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে ইতিহাসের এমন জঘন্যতম হত্যা ও নির্যাতন বন্ধ করার দাবি জানান।
বক্তারা রোহিঙ্গাদের উপর বর্বরোচিত হামলা বন্ধে বাংলাদেশ সরকারকে জাতিসংঘসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থাকে ভূমিকা রাখতে ও তৎপরতা চালাতে চাপ সৃষ্টি করার আহবান জানান।
পাঠানটুলা তৌহীদ জনতা : মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যার প্রতিবাদে নগরীর বৃহত্তর পাঠানটুলা তৌহীদ জনতার উদ্যোগে বাদ জুম্মা পাঠানটুলা জামে মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে নগরী মদিনা মাকের্ট এলাকা গুরে আম্বর খানা পয়েন্টে হয়ে আবার পুনরায় পাঠানটুলা পয়েন্টে এসে একটি সংক্ষিপ্ত সমাবেশ পালন করা হয়েছে।
উক্ত বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে-পাঠানটুলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাও: হুসাই আহমদ‘র সভাপতিত্বে ও মাও: হাফিজ আব্দুল মুমিন আল-হুসাইনী‘র পরিচালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন বক্তব্য রাখেন, লাখাউড়া জামে মসজিদের ইমাম কারী মাও: জাকির হুসাইন জামালি, মাও: মহসিন আলী, মাও: নুরউদ্দিন, মাও আব্দুল রশিদ, মাও ওলীউল্লাহ, মাও নাজিম উদ্দিন, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিল মো: ইছিয়াছুর রহমান ইলিয়াছ, মাও: বদরুল ইসলাম, মাও: শফিকুল ইসলাম, মাও: মুহিবুর রহমান, মাও: সালেহ আহমদ, মাও: সাবুল কৌরাইসী, মাও আদনান, মাও নিজাম উদ্দিন, মাও: বেরাল আহমদ, সিরাজ খান, জাহাঙ্গীর আহমদ, রাসেদুজ্জামান, সজিব খান, আকমল খান, হাসান খান, কামরান খান, সাব্বির আহম্মদ, জুনেদ আহমদ, আব্দুল বারি মেীতল্লী ও সৈয়দ বুরহানসহ এলাকার সর্বস্তরে তৌহীদি জানতা উপস্থিত ছিলেন।
বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবে সভাপতি বক্তব্যে বলেন, মিয়ানমারে মানবতা ভুলুন্ঠিত হচ্ছে। সেখানে প্রতিনিয়ত গণহারে হত্যা করা হচ্ছে সাধারণ নিরপরাধ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠিকে। রোহিঙ্গাদেরকে তাদের আদি নিবাস থেকে জোরপূর্বক বের করে দেয়া হচ্ছে। যারা মানবতার নামে গলাবাজি করেন তারা আজ নিরব। রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘ এবং ওআইসির ভূমিকাও খুবই নগণ্য। আরও বক্তারা বলেন, বৌদ্ধরা যে শান্তির বাণী শুনিয়ে তাদের ধর্ম প্রচার করেন, মিয়ানমারের বৌদ্ধরা তা থেকে বিচ্যুৎ হয়েছেন। বৌদ্ধ ধর্মে জীব হত্যা মহাপাপ হলেও মিয়ানমারে নির্বিচারে সৃষ্টির সর্বশ্রেষ্ঠ জীব মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। এই হত্যাকান্ড বন্ধ করার জন্য সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।
খোজার খলা আদর্শ সমাজ কল্যাণ সংঘ : মিয়ানমার মুসলমান রোহিঙ্গাদের উপর চলমান গনহত্যা, নারী ধর্ষন ও শিশু হত্যার প্রতিবাদে (২ ডিসেম্বর) শুক্রবার বাদ জুম্মা খোজার খলা আদর্শ সমাজ কল্যাণ সংঘ‘র উদ্যোগে খোজার খলা স্কয়ারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
খোজার খলা আদর্শ সমাজ কল্যাণ সংঘ‘র সভাপতি আকমল আলী মালাই’র সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক লাহিন আহমদ রুহেলের পরিচালনায় বক্তারা মিয়ানমানে গণহত্যা, নারী ধষর্ণ ও শিশু হত্যা তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, মিয়ানমার সরকারের এমন অমানুষিক কর্মকান্ডের শিকার রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। মিয়ানমারের মুসলমানদের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন অভিযান বন্ধের জন্য মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহবান জানান। যে পর্যন্ত মিয়ানমারে এই সংঘাত শেষ না হবে ততোদিন পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহবান জানান।
মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন খোজার খলা মারকাজ মসজিদের মোতাওয়াল্লী আলহাজ্ব আতাউর রহমান, ২৬ নং ওয়ার্ড’র সাবেক কাউন্সিলর সেলিম আহমদ রণি, ২৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তাকবির ইসলাম পিন্টু, রুহেল আলম, শামীম আহমদ, বদরুল আলম রিপন, শরীফ উদ্দিন মুন্না, সুহেদ আহমদ, খোকন আহমদ, আশরাফ জকি, জাকির হোসেন, সাগর আহমদ, সুজন আহমদ, আজহার আলী অনিক, কামরান আহমদ, মেহরাজ হোসেন রাজু প্রমুখ।
মোনাজাত পরিচালনা করেন খোজার খলা মারকাজ মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা হিফজুর রহমান ও হাফিজ মাওলানা ওসমান খান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •