এখলাছপুরে পল্লী বিদ্যুতের নামে চাঁদাবাজী হয়নি

প্রকাশিত: ১০:১২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার
গোলাপগঞ্জের বখাটে যুবক কাওছারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ এনে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করলেন গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘা ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার এখলাছপুরের অধিবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন। তার পক্ষে সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাঘা ইউনিয়নের সমাজসেবী আব্দুল মুকিত। বুধবার সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার রণকেলী উত্তর খাসি খাল এলাকার অধিবাসী মৃত আওলাদ আলীর পুত্র কাওছার সাংবাদিকতার পরিচয় দিয়ে চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধ করে যাচ্ছে। সম্প্রতি বাঘা এখলাছপুর গ্রাম বিদ্যুতায়নের বিষয়টি নিয়ে অহেতুক সে বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন ও পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। এ ব্যাপারে ফেইসবুক ও অনলাইনে ভুয়া, ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচার করলে গিয়াস উদ্দিন বাদী হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে কাওছারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলাটি বর্তমানে পিবিআই’র তদন্তাধিন রয়েছে। এছাড়া কাওছার অসৎ উদ্দেশ্যে এখলাছপুর গ্রামের বিভিন্ন ব্যক্তির নাম দস্তখত জাল করে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ ও সরকারের বিভিন্ন মহলে মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন ও পল্লী বিদ্যুতের গোলাপগঞ্জ অঞ্চলের পরিচালক সাংবাদিক আব্দুল আহাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিচ্ছে। এ ব্যাপারে বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে তদন্ত করা হলে এর কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। সর্বশেষ গত ৫ ডিসেম্বর এখলাছপুর এলাকার বিদ্যুৎ বঞ্চিত ক’জনকে বিদ্যুৎ দেয়ার কথা বলে সিলেটে এনে জেলা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে হাজির করে। তাদের মধ্যে ফখরুল ও লাল মিয়া বুধবারের সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে কাওছারের প্রতারণার শিকার বলে তারা জানায়। এ সময় তারা বিদ্যুৎ বিভাগ কিংবা মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিনের বিরুদ্ধে তাদের কোন অভিযোগ নেই বলে জানান।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, কাওছার একজন চিহ্নিত চোর। তার বিরুদ্ধে মোটর সাইকেল চুরির অভিযোগে শাহপরাণ থানায় ২০১২ সালের ০১ এপ্রিল ১/৫২ নং মামলা রয়েছে। এ মামলায় চোর হিসাবে তাকে চিহ্নিত করে পুলিশ চার্জশীট দাখিল করলে মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে। এছাড়া, পল্লী বিদ্যুতের পরিচালক সাংবাদিক আব্দুল আহাদ ও বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনকে জড়িয়ে গত ৫ ডিসেম্বর সংবাদ সম্মেলনে ভিত্তিহীন যেসব বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে তার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, কাওছার একজন অসৎ লোক, স্থানীয় একটি পত্রিকার প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে সমাজে নানা অপকর্ম করে যাচ্ছে। তার মতো অপরাধীর মুখোশ উন্মোচন করার জন্য সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানানো হয়। মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন বলেন, আমি কারো কাছ থেকে চাঁদা আদায় করিনি, কাউকে চাঁদাও দেইনি। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের প্রচেষ্টায় আমার এলাকায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৩ কিলোমিটার বিদ্যুৎ লাইন নির্মিত হয়েছে। অবহেলিত বাঘা এখলাছপুরের বিদ্যুতায়নের ব্যাপারে সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক ও সচিব সাংবাদিক আব্দুল আহাদ, জিএম প্রকৌশলী মাহবুব আলম, আরইবির নির্বাহী প্রকৌশলী জগলুল হায়দার, ডিজিএম সুজিত কুমার বিশ্বাসসহ সংশ্লিষ্টরা সহযোগিতা করায় তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে কাওছার কর্তৃক অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুহিত, বীর মুক্তিযোদ্ধা, আব্দুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, সমাজসেবী সায়েম আহমদ চৌধুরী, হাজী আবুল কালাম, ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন, জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আর্কাইভ

ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০