জাফলং থেকে যুবক নিখোঁজ : পরিবারের দাবী ডিবি তুলে নিয়ে গেছে

প্রকাশিত: ৬:০৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০১৮

জাফলং থেকে যুবক নিখোঁজ : পরিবারের দাবী ডিবি তুলে নিয়ে গেছে

জাফলং প্রতিনিধি: জাফলং থেকে সাব্বির আহমদ নামের এক যুবক নিখোঁজ হয়েছেন। গতকাল ১০ অক্টোবর বিকেলে তিনি জাফলং জিরো পয়েন্ট সংলগ্ন এলাকা থেকে নিখোঁজ হন। সাব্বির কানাইঘাট উপজেলার ৭ নং দক্ষিণ বাণীগ্রাম ইউনিয়নের সর্দারমাটি গ্রামের মৃত কামাল উদ্দিনের পুত্র । প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে তবে সাব্বিরের পরিবারের সদস্যরা দাবী করছেন ডিবি পরিচয়ে সাদা পোষাকধারী কয়েকজন তাকে তুলে নিয়ে গেছে। জানা জায়, সাব্বির আহমদ কানাইঘাট থানার একটি হত্যা মামলার পলাতক আসামী। হত্যা মামলায় আসামী হওয়ার পর থেকে গত আগস্ট মাস ধরে তিনি ফেরার ছিলেন। আত্মগোপনে থাকাবস্থায় গতকাল তিনি জাফলং থেকে নিখোঁজ হন। এদিকে, প্রত্যক্ষদর্শী এবং সাব্বিরের পরিবারের লোকজন দাবী করেছেন সাদা পোষাকধারী কিছু লোক ডিবি পরিচয় দিয়ে তাকে তুলে নিয়ে গেছে। তারা জানান, দীর্ঘদিন ধরে কানাইঘাটের প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতা ও চেয়ারম্যান মাসুদ আহমদের সাথে তাদের জমিজমা নিয়ে ও রাজনৈতিক বিরোধ চলছিল। সাব্বির ও তার পরিবার বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে চেয়ারম্যান মাসুদ নানাভাবে তাদের হয়রানি করতে থাকেন। দলীয় প্রভাব খাটিয়ে তাদের অনেক জমিও জোরপূর্বক দখল করে নেন মাসুদ। এ নিয়ে সংঘর্ষে সাব্বির আহমদের পিতা কামাল উদ্দিনও নিহত হয়েছেন। সাব্বিরের আরেক ভাই যুবদল কর্মী ও ব্যবসায়ী মো: আব্দুস সামাদও আত্মগোপনে রয়েছেন। পরিবারের দাবী মাসুদ আহমদ তাদের ওপর হামলা মামলাসহ বিভিন্ন ধরনের অত্যাচার করে তাদের পরিবারকে নি:স্ব কয়ে দিয়েছেন। মাসুদ আহমদ সরকারদলীয় নেতা হওয়ায় পুলিশও নীরব ভূমিকায় রয়েছে। সাব্বিরের পরিবারের সদস্যরা র্যাব ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে নিখোঁজ সাব্বিরের সন্ধানের জন্য গেলে তারা সাব্বিরকে আটক করেনি বলে জানিয়েছে। এমতাবস্থায় অনেকটা অসহায় হয়ে পড়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা। অনেকটা নিরাপত্তাহীনতায় ভয়ে আর শংকায় কাটছে তাদের জীবন। এদিকে বিষয়টি নিয়ে আলাপ হলে কানাইঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল হাই জানান, সাব্বিরের বিষয়টি তারা জেনেছেন। তবে কে বা কারা সাব্বিরকে ধরে নিয়ে গেছে এ বিষয়ে তাদের কাছে কোন তথ্য নেই। তবে বিষয়টি তারা খতিয়ে দেখছেন – এমন তথ্য দিয়ে ওসি বলেন, সাব্বিরের খোজ বের করতে পুলিশ মাঠে রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •