ষড়যন্ত্রের শিকার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও নবনির্বাচিত সভাপতি

প্রকাশিত: ৭:৪৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৯

ষড়যন্ত্রের শিকার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও নবনির্বাচিত সভাপতি

ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় কানাইঘাটের ২ নম্বর লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তুতা মিয়া কারাগারে বন্দী। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও স্থানীয় সুরইঘাটবাসীর পক্ষে তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন ২ নম্বর লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়ন পশ্চিম আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক, সুনাতন পুঞ্জি গ্রামের মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে আব্দুল মন্নান। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত ২৪ অক্টোবর লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ছিল। এই সম্মেলনে তুতা মিয়া বিপুল ভোটের ব্যবধানে সভাপতি নির্বাচিত হন। তার প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ফখর উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল খালিক মেম্বার ও আওয়ামী লীগ নেতা বুরহান উদ্দিন মুহুরী। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ছিলেন কয়ছর আহমদ মেম্বার। তিনি বলেন, দলের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসে থাকা একটি কুচক্রি মহল কাউন্সিলরদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত এই কমিটি বাতিল করার জন্য নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। কাউন্সিলকে সামনে রেখে তুতা মিয়া সভাপতি প্রার্থীতা ঘোষণা করলে পরাজিতরা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করে। এরই অংশ হিসাবে ১৩ অক্টোবর সিলেটের কাজিরবাজার থেকে একটি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় বিজিবি তুতা মিয়াকে আটক করে। সেই থেকে তিনি কারাবন্দী। বন্দী অবস্থায় ২৪ অক্টোবর তাকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। কাউন্সিলে প্রধান অতিথি ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ আলী দুলাল, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. আরমান আহমদ শিপলু, সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক এমাদ উদ্দিন মানিক, উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক , মস্তাক আহমদ পলাশ, সদস্য এডভোকেট বদরুল ইসলাম জাহাঙ্গীরসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। তাদের উপস্থিতিতে ৭৫ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন তুতা মিয়া। সাধারণ সম্পাদক পদে ৮৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন আলিম উদ্দিন মেম্বার। ভোটগ্রহন শেষে তুতা মিয়াকে সভাপতি ও আলিম মেম্বারকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ফখর উদ্দিন, আব্দুল খালিক মেম্বার, বুরহান উদ্দিন মুহুরী ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী কয়ছর আহমদ পরাজয় স্বীকার করে রেজাল্টশিটেও স্বাক্ষর করেন। এরপর তারা পদ হারানোর শোকে নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন। তারা নির্বাচিত কমিটি বাতিলসহ কাউন্সিলর ও তুতা মিয়ার মানহানী করতে নানা অপ প্রচার শুরু করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি তাদের এসব অপ তৎপরতার নিন্দা জানান। এছাড়াও পরাজিত এসব ষড়যন্ত্রকারী উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধেও নানা অপ প্রচার ও ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নবগঠিত কমিটি অনুমোদনের জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে মো. আব্দুল মান্নানের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ২ নম্বর লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়নের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক আলিম উদ্দিন মেম্বার। উপস্থিত ছিলেন, কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সদস্য আব্দুল লতিফ, ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক, ২ নম্বর ইউনিয়ন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা সেলিম উদ্দিন মেম্বার, ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আফতাব উদ্দিন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মো. জাকারিয়া, ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা সুলতান করিম প্রমুখ। প্রেস-বিজ্ঞপ্তি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ